রোজা অবস্থায় শ্বাসকষ্ট হলে ইনহেলার নেওয়া যাবে কি? – News Portal 24
ঢাকাMonday , ১১ মার্চ ২০২৪

রোজা অবস্থায় শ্বাসকষ্ট হলে ইনহেলার নেওয়া যাবে কি?

নিউজ পোর্টাল ২৪
মার্চ ১১, ২০২৪ ৯:৫৭ অপরাহ্ন
Link Copied!

অ্যাজমা বা শ্বাসকষ্টের কারণে অনেকেই ইনহেলার বা স্প্রে ব্যবহার করেন। এই স্প্রের বোতলের মধ্যে থাকে তরল রাসায়নিক ও অক্সিজেন। স্প্রে চেপে ধরে জোরে শ্বাস নেওয়ার মাধ্যমে ওই ওষুধ গ্রহণ করতে হয়। মুখ দিয়ে এটি গলনালীতে প্রবেশ করে এবং সেখান থেকে শ্বাসনালী হয়ে ফুসফুসে চলে যায়। এর কিছু অংশ গলনালীতে থেকে যায়। আবার এর খুব সামান্য পরিমাণ পেটের ভেতরেও প্রবেশ করে। রমজান মাসে রোজা রেখে ইনহেলার নেওয়া যাবে কি, ইনহেলার নিলে রোজা ভাঙবে কি না— এ সম্পর্কিত মাসয়ালা এখানে তুলে ধরা হলো।

রোজা অবস্থায় শ্বাস কষ্ট হলে অবশ্যই ইনহেলার নেওয়া যাবে। তবে ইনহেলার নিলে রোজা ভাঙবে কি না, এই প্রশ্নের জবাবে আলিমদের দুটি মত পাওয়া যায়।

একদল আলিম বলেন, রোজাদারের ইনহেলার ব্যবহারে কোনো সমস্যা নেই। এ কারণে রোজা ভাঙবে না। কারণ স্প্রের যে অংশ পাকস্থলী পর্যন্ত পৌঁছে, তা খুবই সামান্য। ফলে কুলি করলে ও নাকে পানি দিলে যেমন খুব সামান্য পরিমাণ পানি ভেতরে গেলেও রোজা ভাঙে না, তেমনি স্প্রের এই সামান্য অংশের কারণেও রোজা ভাঙবে না।

মূলত শ্বাসকষ্ট উপশমকারী একটি স্প্রের বোতলে সব মিলিয়ে ১০ মিলিলিটার তরল থাকে, যা দিয়ে ২০০ বার স্প্রে করা যায়। দেখা যায়, প্রত্যেকবার স্প্রেতে এক ফোঁটারও কম তরল পদার্থ থাকে। এই সামান্য পরিমাণ তরল আবার অতি ক্ষুদ্র কণায় বিভক্ত হয়ে যায়। এর একটি অংশ প্রবেশ করে শ্বাসনালীতে, কিছু অংশ থেকে যায় গলনালীতে এবং খুব সামান্য পরিমাণ পেটে যেতে পারে। এই অতি সামান্য পরিমাণ তরল পদার্থ কোনো ব্যাপার না, যেমনিভাবে কুলি ও নাকের সামান্য অংশ পানিনে কোনো সমস্যা নেই। বরং কুলি করলে ও নাকি পানি দিলে যে পরিমাণ পানি ভেতরে প্রবেশ করে, তা স্প্রের ভেতরে প্রবেশকারী অংশের চেয়ে অনেক বেশি।

আরেকটি বিষয় হলো, স্প্রের কিছু অংশ যে পাকস্থলীতে প্রবেশ করবেই তা কিন্তু নিশ্চিত নয়; প্রবেশ করতেও পারে, নাও পারে। নিয়ম হচ্ছে, নিশ্চিত কোনো বিষয় সন্দেহপূর্ণ কোনো বিষয়ের দ্বারা বিদূরিত হয় না।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, চিকিৎসকেরা বলেন, আরাক গাছের মিসওয়াকে আট প্রকার রাসায়নিক পদার্থ থাকে, যা দাঁত ও মাড়িকে রোগ-বালাই থেকে রক্ষা করে। পদার্থগুলো লালার সঙ্গে মিশে গলনালীতে প্রবেশ করে। অথচ মেসওয়াক সম্পর্কে আমের ইবনে রবিআহ (রা.) বলেন, ‘আমি রাসুল (সা.)-কে সাওম পালন অবস্থায় অসংখ্য বার মিসওয়াক করতে দেখেছি।’ (তিরমিজি: ৭২৫)

মিসওয়াকের ওই পদার্থ খুব সামান্য পরিমাণ হওয়ার কারণে এবং ইচ্ছাকৃত না হওয়ার কারণে পাকস্থলীতে পৌঁছা সত্ত্বেও তা রোজার কোনো ক্ষতি করে না। একই কারণে স্প্রের যে সামান্য অংশ ভেতরে প্রবেশ করে, তাও রোজার কোনো ক্ষতি করবে না।

সৌদি আরবের ফাতওয়া বোর্ডের স্থায়ী কমিটিসহ অনেক আলিম এই মত গ্রহণ করেছেন।

দ্বিতীয় মতটি হলো, একদল আলিম বলেছেন, শ্বাসকষ্ট উপশমকারী স্প্রে (ইনহেলার) গ্রহণে রোজা ভেঙে যাবে। তাই জরুরি প্রয়োজনে যদি রোজা অবস্থায় রোগীকে ইনহেলার গ্রহণ করতে হয়, তাহলে তাকে ওই দিনের রোজা কাজা করতে হবে। মুফতি মুহাম্মাদ তাকি উসমানি এবং ড. ওয়াহবা যুহায়লি এই মত গ্রহণ করেছেন। তাঁরা বলেছেন, যেহেতু এই স্প্রের উপাদান পাকস্থলী পর্যন্ত পৌঁছে, সেহেতু তা রোজা নষ্ট করবে। তাঁদের মতে, প্রথম দলের কথা—এটি পাকস্থলীতে যায় না; বরং শ্বাসনালীতে সীমাবদ্ধ থাকে—এই বক্তব্য সঠিক নয়। ফলে এর সামান্য অংশ হলেও যেহেতু পাকস্থলীতে যায়, সেহেতু তা রোজা ভেঙে দেবে।

তবে তাঁদের মতে, কোনো ব্যক্তির শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে তিনি রোগীর অন্তর্ভুক্ত। রোজা ভেঙে চিকিৎসা নেওয়া তাঁর জন্য বৈধ। সুতরাং রোজা অবস্থায় শ্বাসকষ্ট হলে তাঁদের মতেও ইনহেলার নেওয়া যাবে। তবে এ কারণে রোজা ভেঙে যাবে এবং পরে কাজা করে দিতে হবে।

সূত্র: আল-মাউসুআতুল মুয়াসসারাহ ফি ফিকহিল কাজায়াল মুআসারাহ