ছোলা কীভাবে ও কতটুকু খাওয়া ভালো, যা বলছেন পুষ্টিবিদ – News Portal 24
ঢাকাSunday , ১৭ মার্চ ২০২৪

ছোলা কীভাবে ও কতটুকু খাওয়া ভালো, যা বলছেন পুষ্টিবিদ

নিউজ পোর্টাল ২৪
মার্চ ১৭, ২০২৪ ৪:১৩ পূর্বাহ্ন
Link Copied!

এখন চলছে পবিত্র রমজান মাস। এ মাসে সেহরি ও ইফতারে অনেকেই ছোলা রাখেন। তবে ইফতারে ছোলা ছাড়া যেন চলেই না কারো। স্বাস্থ্যউপকারী হওয়ায় ছোলায় অবশ্য কেউ কার্পণ্য করেন না। এ কারণে অনেকেই ইফতারে একটু বেশিই ছোলা খেয়ে ফেলেন।

পুষ্টিকর এই খাবার কীভাবে ও কতটুকু খেলে উপকার পাওয়া যায়―সেটি অজানা অধিকাংশের। সম্প্রতি এ ব্যাাপারে দেশের একটি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন রাজধানীর মিরপুর ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল অ্যান্ড কার্ডিয়াক সেন্টারের সিনিয়র পুষ্টিবিদ শরীফা আক্তার শাম্মী। এবার তাহলে এই পুষ্টিবিদের ভাষ্য অনুযায়ী ছোলা খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

পুষ্টিগুণ: ছোলা হচ্ছে প্রোটিনসমৃদ্ধ। এটাকে সেকেন্ড ক্লাস প্রোটিন বা উদ্ভিজ্জ প্রোটিনও বলা হয়ে থাকে। ফাইবার ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এই খাবার খাওয়ার ফলে হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। যাদের কোষ্ঠ্যকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে তাদের নিরাময় হয়। নিয়মিত ছোলা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। আয়রন সমৃদ্ধ হওয়ায় শরীরে লোহিত রক্ত কণিকার উৎপাদন বৃদ্ধি করে রক্তাল্পতার সমস্যা দূর করে।

এছাড়া ছোলায় বিদ্যমান গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম হওয়ায় রক্তে শর্করার মাত্রা ধীর গতিতে বাড়ায়। ছোলার আঁশ উপস্থিত গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে ডায়াবেটিসের রোগীরা নিয়মিত তাদের খাদ্যতালিকায় ছোলা রাখতে পারেন। আবার যাদের হাই কোলেস্টেরল রয়েছে তাদের মাছ-মাংস কম খাওয়ার জন্য বলা হয়। তবে প্রোটিনে চাহিদা পূরণে ছোলা খাওয়া যেতে পারে। এতে শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা সবসময় নিয়ন্ত্রণে থাকবে। আর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং বিভিন্ন রসায়নিক উপাদান থাকায় ক্যানসার ও টিউমার বৃদ্ধি রোধ করে থাকে ছোলা।

খাওয়ার উপায়: কোন খাবার থেকে ঠিক কতটুকু পুষ্টিগুণ মিলবে সেটি নির্ভর করে তার রান্না বা পরিবেশনের ওপর। সাধারণত তেল, মশলা দিয়ে রান্না করা হয় ছোলা। যা মোটেও স্বাস্থ্যসম্মত নয়। ছোলার পুষ্টিগুণ পাওয়ার জন্য এটি কাঁচা বা সেদ্ধ করে খেতে হবে। খাওয়ার আগে পানিতে ভিজিয়ে রাখতে পারেন। তবে না ভিজিয়ে যদি দ্রুত সেদ্ধ করে খাওয়া হয়, তাহলে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ছোলা। এ জন্য সারারাত বা অন্তত ৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখার পর খাওয়ার উপযোগী করতে হবে। এতে করে ছোলায় কোনো কেমিক্যাল বা জীবাণু থাকলে তা দূর হবে।

পুষ্টিগুণ পাওয়ার জন্য ছোলা ভুনা না করে বরং সেদ্ধ করে টমেটো, শসা, চাটমশলা ও অল্প পরিমাণ অলিভ অয়েল বা সরিষার তেল দিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এতে উপকার মিলবে। আবার ছোলার সঙ্গে কিছুটা টক দই মিশিয়েও খাওয়া যেতে পারে।

কতটুকু খাবেন: ছোলা কখনোই অতিরিক্ত খাওয়া যাবে না। একজন সুস্থ মানুষের প্রতিদিন ২৫-৩০ গ্রামের বেশি ছোলা খাওয়া ঠিক নয়। আর যারা অসুস্থ, তারা অবশ্যই চিকিৎসক বা পুষ্টিবিদের পরামর্শ অনুযায়ী খাবেন।

আর হ্যাঁ, পটাশিয়াম সমৃদ্ধ হওয়ায় কিডনিজনিত রোগিদের জন্য ছোলা ক্ষতিকর। যাদের পেটে ব্যথা রয়েছে, তাদের এটি না খাওয়াই ভালো। আবার কৌটাজাত ছোলা ব্যবহারের আগে অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। কারণ, কৌটাজাত খাবারের মাধ্যমে বটুলিজম নামক বিষক্রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।