নীরব ঘাতক গ্লুকোমায় হারিয়ে ফেলতে পারেন দৃষ্টিশক্তি – News Portal 24
ঢাকাSaturday , ১২ অগাস্ট ২০২৩

নীরব ঘাতক গ্লুকোমায় হারিয়ে ফেলতে পারেন দৃষ্টিশক্তি

নিউজ পোর্টাল ২৪
অগাস্ট ১২, ২০২৩ ৮:৫৬ পূর্বাহ্ন
Link Copied!

গ্লুকোমা এক নীরব ঘাতক। চোখের স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে এ রোগ হয়। আবার চোখের অভ্যন্তরীণ চাপ (প্রেশার) বেড়ে গিয়েও এ রকম হতে পারে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে আবার চোখের অভ্যন্তরীণ চাপ স্বাভাবিক থাকলেও এ রোগ হয়। তবে উচ্চ রক্তচাপের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই।

গ্লুকোমাজনিত অন্ধ লোকের সংখ্যা প্রায় ৮ মিলিয়ন। এর এক বিরাট অংশ রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ায়। গ্লুকোমা রোগ সম্পর্কে সচেতনতার অভাবে এক বিরাট জনগোষ্ঠী অপরিবর্তনযোগ্য অন্ধত্বের শিকার হন, যা প্রাথমিক পর্যায়ে নির্ণয় করতে পারলে প্রতিরোধ করা সম্ভব।

কোন কোন লক্ষণ দেখলেই সতর্ক হবেন?

কোনো পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি যদি বলেন, তিনি পাশের দিকে দেখতে পারছেন না, তা হলে বুঝতে হবে, অনেকটা ক্ষতি হয়ে গেছে। আর কী দেখে সাবধান হবেন? আট থেকে আশি, যে কোনো বয়সী মানুষের চোখেই থাবা বসাতে পারে গ্লুকোমা। ঠিক সময়ে ধরা না পড়লে এবং চিকিৎসা শুরু না করলে চিরতরে দৃষ্টিশক্তিও কেড়ে নিতে পারে এই রোগ। তাই চিকিৎসকরা একে ‘সাইলেন্ট থিফ’ বলে থাকেন।

গ্লুকোমা ঠিক কী ও কেন হয়?

চিকিৎসকদের মতে, চোখের মধ্যে যে অংশ দিয়ে তরল চলাচল করে, সেই রাস্তা বন্ধ হয়ে গেলে তা জমে চোখের ওপর চাপ সৃষ্টি করে। বিশেষ করে অপটিক স্নায়ুতে। সেই চাপ বাড়তে থাকলে ধীরে ধীরে দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণতর হতে থাকে, পরবর্তী কালে যা অন্ধত্ব ডেকে আনে।

প্রাথমিকভাবে ক্ষতিটা শুরু হয় পরিধির চারপাশ থেকে, তাই গ্লুকোমায় আক্রান্ত রোগীদের ‘সাইড ভিশন’ নষ্ট হতে থাকে। চোখের ভেতর জল তৈরি হতে থাকে, অথচ বেরোনোর জায়গা পায় না, এর ফলেই তা দুর্বল জায়গাগুলোতে চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। কোনো পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি যদি বলেন, তিনি পাশের দিকে দেখতে পারছেন না, তা হলে বুঝতে হবে, ক্ষতি অনেক দূর ছড়িয়ে গেছে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে গ্লুকোমায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি থাকে।

গ্লুকোমার প্রাথমিক লক্ষণগুলো কী কী?

>> দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হয়ে যাওয়া।

>> চোখ থেকে অত্যধিক জল পড়া। চোখ লাল হয়ে যাওয়া।

>> আলোর দিকে তাকালে চোখে ভীষণ ব্যথা হওয়া।

>> চোখের পাতা এঁটে যাওয়া, চোখ খুলতে না পারা।

>> দীর্ঘদিন কোনো স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ গ্রহণ করলে, চোখে কোনো আঘাত পেয়ে থাকলে বা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে গ্লুকোমায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি থাকে।

>> চোখের চিকিৎসক একবার পাওয়ার সেট করে দেওয়ার পরে সাধারণত আর এক-দেড় বছরের মধ্যে তা বাড়ার সম্ভাবনা থাকে না। তবে যদি মাস কয়েক যাওয়ার পর থেকেই দেখতে অসুবিধা হয়, কিংবা ঘন ঘন পাওয়ার বাড়ে, তাহলে সন্দেহ করতে হবে, তা গ্লকোমার প্রকোপে হতে পারে। চিকিৎসকদের মতে, এই রোগে আক্রান্ত হলে সম্পূর্ণভাবে সারানো সম্ভব নয়। তবে সময়মতো ধরা পড়লে চিকিৎসার মাধ্যমে অসুখের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।

গ্লুকোমা রোগের চিকিৎসা

গ্লুকোমা রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব কিন্তু নিরাময় সম্ভব নয়। ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপের মতো এই রোগের চিকিৎসা সারাজীবন করে যেতে হবে। এ রোগে দৃষ্টি যতটুকু হ্রাস পেয়েছে তা আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। তবে দৃষ্টি যাতে আর কমে না যায় তার জন্য আমাদের চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে।

এ রোগে প্রচলিত তিন ধরনের চিকিৎসা রয়েছে-
>> ওষুধের দ্বারা চিকিৎসা
>> লেজার চিকিৎসা
>> শৈল্য চিকিৎসা বা সার্জারি

যেহেতু চোখের উচ্চচাপ এই রাগের প্রধান কারণ, তাই ওষুধের দ্বারা চোখের চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়। একটি ওষুধ দ্বারা নিয়ন্ত্রণে রাখা না গেলে একাধিক ওষুধ ব্যবহার করতে হবে। তদুপরি তিন মাস অন্তর অন্তর চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে এ রোগের নিয়মিত কতগুলো পরীক্ষা করিয়ে দেখতে হবে এই রোগ নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা। যেমন-
>> দৃষ্টিশক্তি পরীক্ষা
>> চোখের চাপ পরীক্ষা
>> দৃষ্টি ব্যাপ্তি বা ভিজুয়্যাল ফিল্ড পরীক্ষা
>> চোখের নার্ভ পরীক্ষা

এই রোগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো নিয়মিত ওষুধ ব্যবহার করা এবং সময়মতো চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে নিয়মিত চক্ষু পরীক্ষা ও তার পরামর্শ মেনে চলা।

যেহেতু অধিকাংশ রোগীর চোখে কোনো ব্যথা হয় না, এমনকি তেমন কোনো লক্ষণ বা অনুভূত হয় না, তাই রোগী নিজে এমনকি রোগীর আত্মীয়স্বজনরাও এই দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা অব্যাহত রাখেন না; ফলে অনেক রোগী অকালে অন্ধত্ব বরণ করে থাকেন।

ঔষধ ছাড়াও অন্যান্য চিকিৎসা রয়েছে, যার সিদ্ধান্ত প্রয়োজনে বা সময়মতো চিকিৎসক গ্রহণ করতে পারেন। যেমন- গ্লুকোমা, লেজার চিকিৎসা এবং শল্যচিকিৎসা যার দ্বারা এই রোগে চোখের চাপ নিয়ন্ত্রণ রাখা সম্ভব।

গ্লুকোমা রোগে রোগীর করণীয়

>> চিকিৎসক রোগীর চক্ষু পরীক্ষা করে তার চোখের চাপের মাত্রা নির্ণয় করে তা নিয়ন্ত্রণের জন্য যে ওষুধের মাত্রা নির্ধারণ করে দেবেন তা নিয়মিত ব্যবহার করা।

>> দীর্ঘদিন একটি ঔষধ ব্যবহারে এর কার্যকারিতা কমে যেতে পারে বা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে তাই নিয়মিত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া।

>> সময়মতো চোখের বিভিন্ন পরীক্ষা (যা পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে) করিয়ে দেখা যে তার গ্লুকোমা নিয়ন্ত্রণে আছে কি না। পরিবারের সবার চোখ পরীক্ষা করিয়ে গ্লুকোমা আছে কিনা তা নিশ্চিত হওয়া।

সর্বোপরি মনে রাখতে হবে, এটি একটি দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা। ঠিকমতো ওষুধ ব্যবহার করে এবং চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চললে একজন গ্লুকোমা রোগী তার স্বাভাবিক দৃষ্টি নিয়ে বাকি জীবনটা সুন্দরভাবে অতিবাহিত করতে পারেন।


প্রশ্ন : গ্লুকোমা চোখের অত্যন্ত জটিল একটি রোগ। গ্লুকোমা বিষয়টি কী?

উত্তর : গ্লুকোমা চোখের একটি রোগ। এ রোগ চোখের দৃষ্টি নষ্ট করে দেয়। চোখের একটি স্বাভাবিক চাপ রয়েছে। গ্লুকোমা রোগে সাধারণত চোখের চাপ বেড়ে যায়। চোখের অপটিক নার্ভ থাকে। এই অপটিক নার্ভের ফাইবারগুলো আস্তে আস্তে নষ্ট হতে থাকে, গ্লুকোমা রোগের জন্য। চোখের চাপ বৃদ্ধি পেয়ে আস্তে আস্তে নার্ভের ফাইবারগুলো নষ্ট হয়ে যায়।

একটি নার্ভের মধ্যে ১ দশমিক ২ মিলিয়ন ফাইবার থাকে। এই ফাইবারগুলো আস্তে আস্তে নষ্ট হয়। তবে একটা জিনিস মনে রাখা দরকার, গ্লুকোমা রোগে সাধারণত চাপ বাড়ে। তবে চাপ স্বাভাবিক থাকা অবস্থায়ও কারো কারো গ্লুকোমা রোগ হতে পারে। দুই রকমের গ্লুকোমা রয়েছে। একটি হলো, বাচ্চাদের গ্লুকোমা এ বড়দের গ্লুকোমা।

বড়দের গ্লুকোমার মধ্যে একটিকে বলে ওপেন এঙ্গেল গ্লুকোমা। আরেকটি হলো, ন্যারো এঙ্গেল গ্লুকোমা। ওপেন এঙ্গেল গ্লুকোমাকে বেশি ক্ষতিকর হিসেবে ধরা হয়। কারণ এই গ্লুকোমাটা রোগী বুঝতে পারে না। এতে আস্তে আস্তে চোখের ক্ষতি হতে থাকে। গ্লুকোমার যে নার্ভ ফাইবারগুলো নষ্ট হয়, এগুলো চিরস্থায়ীভাবে নষ্ট হয়। চোখ একবার নষ্ট হলে আর ভালো হয় না। হাত পায়ের নার্ভে একবার আঘাত লাগলে ভালো হয়। চোখের নার্ভ একবার নষ্ট হলে এটি আর কখনো ফিরে আসে না।

প্রশ্ন : গ্লুকোমা হওয়ার জন্য কী কী বিষয় দায়ী?

উত্তর : চোখের মণির পাশের যে এঙ্গেল থাকে, সেটি যদি ছোট হয়ে যায় বা সরু হয়ে যায় সমস্যা হয়। ট্রাবিকুলাম বলে একটি বস্তু রয়েছে, এর ভেতর দিয়ে চোখের পানি প্রবাহিত হয়। এই পানি প্রবাহিত হওয়ার সময় যদি কোনো বাধার সম্মুখীন হয়, সেক্ষেত্রে চোখের চাপ বাড়ে। এটি চোখের ভেতরের কোনো কোনো সমস্যার কারণেও হতে পারে এবং শরীরের অন্যান্য কিছু কারণ রয়েছে, এর জন্যও হতে পারে।

প্রশ্ন : ছানির অস্ত্রোপচার না হলে কী গ্লুকোমা হতে পারে?

উত্তর : ছানি যদি সময়মতো অস্ত্রোপচার না করা যায়, সেক্ষেত্রে চোখের চাপ বেড়ে, এর পেছনে যে আইরিশ রয়েছে, এটি সামনের দিকে চলে আসে। যার জন্য এঙ্গেল ছোট হয়ে যায় এবং চোখের চাপ বাড়ে। এ ছাড়া আরো কিছু কারণ রয়েছে।  তাই গ্লুকোমা রোগের শুরুতে এটি চিহ্নিত করা প্রয়োজন।

ন্যারো এঙ্গেল গ্লুকোমার কারণে চোখ লাল হয়, চোখ ব্যথা হয়, চোখের দৃষ্টি কমে যায় এবং তীব্র ব্যথা হতে পারে। সেটি হলে রোগী সাধারণত চিকিৎসকের কাছে যায়। চিকিৎসকের কাছে না গিয়ে কোনো উপায় থাকে না। এটির রোগ নির্ণয় তাড়াতাড়ি হয়।

প্রশ্ন : গ্লুকোমা রোগ আগেভাগে নির্ণয়ের উপায় কী?

উত্তর:  ওপেন অনসেট গ্লুকোমা সাধারণত চল্লিশের কাছাকাছি সময়ে হয়। যারা চল্লিশ বছরের কাছাকাছি বয়সের তারা চক্ষু বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে পরামর্শ নেবেন। চিকিৎসকও দেখবেন রোগটি হয়েছে কি না। আর রোগীও জানতে চাইবেন তাঁর রোগটি রয়েছে কি না। যদি কারো পরিবারে গ্লুকোমা থাকে, তাদের অবশ্যই ৪০ বছর বয়সের পর চোখ পরীক্ষা করতে হবে।

প্রশ্ন : গ্লুকোমার পরীক্ষা কত বছর পর পর করতে হয়?

উত্তর : যারা চাকরি করেন তাঁদের একটি বাৎসরিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে হয়। যাদের বয়স চল্লিশের বেশি প্রতি বছর তাদের চোখ পরীক্ষা করতে হবে। চোখের কোনো রোগ আছে কি না দেখতে হবে। এ ছাড়া আরেকটি বলব, ৪০ বছর বয়স হলে আমরা কাছে পড়তে পারি না, তখনও একটি পরীক্ষার প্রয়োজন হয়। এ ছাড়া সরকারি বেসরকারি সংস্থা, গ্লুকোমা সোসাইটি- এদেরও বলব সারা দেশে রোগ নির্ণয়ের প্রক্রিয়া শুরু করা।

গ্লুকোমা রোগের শুরুতে যদি রোগ নির্ণয় করা যায় এর চিকিৎসা করা সহজ হবে।

প্রশ্ন : গ্লুকোমা রোগীর চিকিৎসায় কী করে থাকেন?

উত্তর : গ্লুকোমা রোগ নির্ণিত হওয়ার পর বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা রয়েছে। কিছু উপদেশ মেনে চলতে হয় তাদের। সকালবেলা কেউ কেউ একসাথে এক লিটার, দেড় লিটার পানি খেয়ে ফেলে। এটি ত্যাগ করতে হবে। উচ্চ রক্তচাপের জন্য বিটাব্লকার জাতীয় ওষুধ রাত্রে খাওয়া যাবে না। যাদের পরিবারে গ্লুকোমা আছে তাদের এই বিষয়ে সতর্ক করা। আর চিকিৎসার ক্ষেত্রে লেজার চিকিৎসা রয়েছে। ওষুধের চিকিৎসা রয়েছে। অস্ত্রোপচার রয়েছে। এই তিন রকম চিকিৎসা গ্লুকোমায় করা হয়।

প্রশ্ন : গ্লুকোমা চিকিৎসা করলে লাভ কী? আপনি বলছিলেন নার্ভে একবার সমস্যা হলে সেটি ফিরে আসে না। তাহলে এর চিকিৎসার গুরুত্বটা কোথায়?

উত্তর : জিনিসটার গুরুত্ব এখানেই যে যখন রোগটি শুরু হয়, ধরেন একজনের ১০ ভাগ বা ২০ ভাগ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, আধুনিক পরীক্ষার মাধ্যমে শুরুতেই রোগ নির্ণয় করা সম্ভব হয় এবং কতখানি ক্ষতি হয়েছে সেটিও বোঝা যায়। আমাদের দেশে শুরুতে গ্লুকোমা রোগ নির্ণয় করার সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা সম্ভব। গ্লুকোমা রোগ নির্ণয়ের জন্য সবাইকে সচেষ্ট হতে হবে। আর যাদের গ্লুকোমা রোগ ধরা পড়ে গেছে তাদের নিয়মিত ওষুধ নিতে হবে। ওষুধ না নিলে নীরবে নার্ভের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। গ্লুকোমার কারণে নার্ভ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ওই অন্ধত্ব হলে আর দৃষ্টি ফেরানো যায় না।