চীনে উইঘুর মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন – News Portal 24
ঢাকাWednesday , ৫ জুলাই ২০২৩

চীনে উইঘুর মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক
জুলাই ৫, ২০২৩ ৬:৫৯ অপরাহ্ন
Link Copied!

চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে উইঘর মুসলিমদের ওপর বর্বরোচিত হামলা, আটক , জাতিগত নিধন ও অত্যাচারের প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

বুধবার (৫ জুলাই) উইঘুরদের ‘উইকমিরি ম্যসাকার ‘ দিবস উপলক্ষে মানবাধিকার সংরক্ষণ পরিষদ সিলেট এর ব্যানারে নগরীর কোর্ট পয়েন্টে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

জামেয়া দারুরু রাশাদ সিলেট এর প্রিন্সিপাল মাওলানা কায়ছান মাহমুদ আকবরীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্মমহাসচিব ও সিলেট মহানগর সভাপতি মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী।

তরুন সংগঠক মাওলানা শাহিদ হাতিমীর পরিচালনায় মানববন্ধনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস সিলেট মহানগর সভাপতি মাওলানা গাজী রহমতুল্লাহ, ইসলামী ঐক্যজোট সিলেট মহানগর সভাপতি মাওলানা ফয়জুল হক জালালাবাদী।

এ ছাড়া মানববন্ধনে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন,মাদরাসার শিক্ষার্থী, গণমাধ্যমকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।

বক্তারা অবিলম্বে চীনের হাতে আটক দশ লাখ উইঘর পুরুষকে বন্দিশালা থেকে মুক্তি দেওয়ার জোর দাবি জানান। চীনের উইঘর মুসলিমদের ওপর অত্যাচার বন্ধ্ করে স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকার পথ তৈরী করে দিতে দেশটির সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

মানববন্ধনে উল্লেখ করা হয়, ২০০৯ সালের ৫ জুলাই মুসলিম উইঘুররা তাদের স্বদেশের রাজধানী উরুমকিতে চীনা দখলদার সেনাবাহিনী এবং তার ঔপনিবেশিক হান জনগোষ্ঠীর দ্বারা নির্মমভাবে গণহত্যার শিকার হয়েছিল। ওই যৌথ হামলায় দু হাজারের অধিক উইঘর নারী ও পুরুষ নিহত হয়। পরবর্তি এক সপ্তাহ জুড়ে রাষ্ট্রীয় সাহায্যপুষ্ট হান জনগোষ্ঠী পিটিয়ে কুপিয়ে আরও কয়েক হাজার উইঘর নাগরিকদের হত্যা করে। চীনা মিডিয়া ও রাষ্ট্রীয়ভাবে বিষয়টি গোপন রাখা হলে পরবর্তিতে এই খবর দেশের বাইরে চলে যায়। আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় ওই ঘটনায় নিহতের সংখ্যাটি ৭ হাজারের কাছাকাছি বলে উল্লেখ করা হয়। বিশ্বজুড়ে উইঘুর প্রবাসীরা প্রতি বছর দিবসটি স্মরণে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রমের আয়োজন করে।

বক্তারা বলেন, গত ৭ বছর ধরে কারিগরি শিক্ষা দেওয়ার নামে উইঘর পুরুষদের পরিবার থেকে আলাদা করে জেলে বন্দি করে অত্যাচার চালানো হচ্ছে। এদের মধ্যে অনেকে জেলখানায় মৃত্যুবরণ করেছেন। অবিলম্বে তাদের মুক্তি দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার সুযোগ করে দেওয়ার আহ্বান জানান।