যেসব ছেলেদের বেশি মেয়ে বন্ধু জোটে – News Portal 24
ঢাকাTuesday , ২ নভেম্বর ২০২১

যেসব ছেলেদের বেশি মেয়ে বন্ধু জোটে

নিউজ পোর্টাল ২৪
নভেম্বর ২, ২০২১ ৩:১৯ অপরাহ্ন
Link Copied!

এক গবেষণায় বলা হয়েছে, যে পুরুষরা সহানুভূতিশীল হন তাদের নারী বন্ধু বেশি থাকে। এ কারণে বয়ঃসন্ধিকালে বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সহমর্মী ছেলেদের মেয়ে বন্ধুর সংখ্যা বেশি থাকে।

গবেষণায় বলা হয়, ছেলে-মেয়েদের বন্ধুত্ব হওয়া অতি স্বাভাবিক বিষয়। তবে যে ছেলেরা সমবেদনা প্রকাশ বা এই গুণ ধারণ করেন তাদের মেয়ে বন্ধুর সংখ্যা অন্য ছেলেদের চাইতে ১.৮ গুণ বেশি হয়। কারণ মেয়েরা এমন মানসিকতার ছেলেদের বন্ধু হিসাবে ভাবতে পছন্দ করেন। অন্যদিকে, একই গুণ মেয়েদের মধ্যে থাকার কারণে ছেলেরা যে আকৃষ্ট হন তা নয়।

অস্ট্রেলিয়ান ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ও প্রধান গবেষক জোসেপ সিরাওচি জানান, বয়ঃসন্ধিকাল থেকে মানুষের সুষ্ঠু বিকাশে বন্ধুত্ব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বহু গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, সত্যিকার বন্ধুত্ব মানুষের ব্যক্তিগত দক্ষতা, শিক্ষা এবং বিকাশে কার্যকর ভূমিকা রাখে। বন্ধুত্ব মানুষকে বিষণ্নতার হাত থেকেও রক্ষা করে।

এ গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে জার্নাল অব পারসোনালিটি-তে। গবেষকদের দল কুইনসল্যান্ড এবং নিউ সাউথ ওয়েলসের ১৯৭০ জন শিক্ষার্থীকে বেছে নেন যাদের গড় বয়স ১৫.৭ বছর। বিশেষজ্ঞরা সহানুভূতিকে অন্যের আবেগের সঙ্গে জুড়ে যাওয়ার প্রভাবশালী মাধ্যম হিসাবে গণ্য করেছেন।

শিক্ষার্থীদের সমবয়সী ৫ জন ছেলে ও ৫ জন মেয়ে বন্ধুর কথা বলতে বলা হয় যারা সবাই তাদের কাছের বন্ধু বলে বিবেচ্য হবে।

দেখা গেছে, একজন ছেলে বা মেয়ে সেই ছেলেটিকেই কাছের বন্ধু বলে মনে করছেন, যাকে তারা আবেগময় মুহূর্ত বা বিভিন্ন সময় কাছে সহযোগী হিসাবে পেয়েছেন। তবে কাছের বন্ধু হিসাবে মেয়েদের বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে সহমর্মিতার গুণকে প্রাধান্য দেওয়া হয়নি। নারী বা পুরুষ উভয়ের মধ্যে সমব্যথী পুরুষকেই কাছের বন্ধু বলে গণ্য করা হয়েছে।

সিরায়োচি জানান, এ গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে যে, মানুষকে বন্ধু হিসাবে পেতে চাইলে এ গুণের চর্চা ঘটাতে হবে নিজের মধ্যে। বন্ধু বাছাই বা এ সম্পর্ককে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে তাই সহানুভূতি অন্যতম সেরা গুণ হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস।