বাংলাদেশে রয়্যাল এনফিল্ড বানাবে ‘ইফাদ গ্রুপ’ – News Portal 24
ঢাকাMonday , ১ নভেম্বর ২০২১

বাংলাদেশে রয়্যাল এনফিল্ড বানাবে ‘ইফাদ গ্রুপ’

নিউজ পোর্টাল ২৪
নভেম্বর ১, ২০২১ ৯:২৬ অপরাহ্ন
Link Copied!

বিশ্বখ্যাত এই মোটরসাইকেল তৈরির জন্য চট্টগ্রামে ইতোমধ্যেই একটি কারখানা স্থাপন করছে প্রতিষ্ঠানটি।

এ শতকের শুরুর দিকে দেশে মোটরসাইকেলের সিসি সীমাবদ্ধতা বেঁধে দেওয়া হয়। অর্থাৎ নির্দিষ্ট ক্ষমতার (সিসি) বেশি মোটরসাইকেল দেশে চলতে পারত না।

এ কারণে প্রচুর বিদেশি বিনিয়োগ থেকে বঞ্চিত ছিল বাংলাদেশ। কিছু কোম্পানি মোটরসাইকেলে নিত্যনতুন সুবিধা নিয়ে গ্রাহকদের মন জয়ের চেষ্টা করেছে। কিন্তু বিষয়টি গতিপ্রেমী ব্যবহারকারীদের সন্তুষ্ট করতে পারেনি। সর্বশেষবার সরকার সীমাবদ্ধতায় কিছুটা ছাড় দেয়। তবে তা ছিল মাত্র ১৫ সিসি।

আশার কথা হলো, সম্প্রতি ইফাদ মোটরসকে ৩৫০ সিসি থেকে ৫০০ সিসি পর্যন্ত ইঞ্জিন সম্পন্ন বাইক তৈরির অনুমতি দিয়েছে সরকার।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে খসড়া আমদানি নীতি আদেশ ২০২১-২৪ সংশোধনের জন্য বলেছে শিল্প মন্ত্রণালয়। সংশোধিত খসড়া আমদানি নীতি আদেশে স্থানীয় প্রস্তুতকারকরা যাতে কারখানা স্থাপন এবং ৫০০ সিসির বাইক তৈরিতে প্রয়োজনীয় কাঁচামাল আমদানি করতে পারে সে ব্যাপারে সুপারিশ করা হয়েছে।

ইতোমধ্যেই ইফাদ মোটরসকে এ বিষয়ে অনুমতিপত্র পাঠিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়।

দেশি ক্রেতাদের চাহিদা মেটানোর পর এসব বাইক রপ্তানির পরিকল্পনা রয়েছে ইফাদের।

ইফাদ মোটরসের কর্মকর্তারা জানান, দেশে বিক্রি না হলে রপ্তানি শুরুর আগেই প্রতিযোগিতা থেকে পিছিয়ে পড়বে প্রতিষ্ঠানটি।

তবে ২০২৩ সালের আগে বাংলাদেশে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ইঞ্জিনের বাইক তৈরির অনুমতি দেওয়ার চিন্তার বিরোধিতা করছে বাংলাদেশ মোটরসাইকেল অ্যাসেম্বলার অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন। তাদের আশঙ্কা, সিসি সীমাবদ্ধতা (বর্তমানে ১৬৫ সিসি) শিথিল করা হলে বর্তমান প্রস্তুতকারকরা ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে।

তবে ট্যারিফ কমিশন ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের অবস্থান রয়েছে পরিবর্তনের পক্ষেই।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিনিধি জানান, সিসি সীমাবদ্ধতা উঠে গেলে মন্ত্রণালয় প্রাথমিক যাচাই-বাছাইয়ের কাজ পরিচালনা করবে।

নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমস্যা থাকার সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বিআরটিএ এখনও বিধিনিষেধের পক্ষে থাকলেও বিশ্বজুড়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত সম্পূর্ণ বিপরীত। বিশেষজ্ঞদের মতে, নিয়ন্ত্রণ এবং সুরক্ষা বৈশিষ্ট্য উন্নত বলে উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ইঞ্জিনের বাইকগুলো নিরাপদ।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) জানায়, শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে যে সিদ্ধান্তই নেওয়া হোক না কেন তাতে তাদের কোনো সমস্যা নেই।