বোয়ালজুরে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত – News Portal 24
ঢাকাSaturday , ২৩ অক্টোবর ২০২১

বোয়ালজুরে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

নিউজ পোর্টাল ২৪
অক্টোবর ২৩, ২০২১ ১০:০০ অপরাহ্ন
Link Copied!

বালাগঞ্জ প্রতিনিধি:: বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল ইসলাহ ও তালামিযে ইসলামিয়া বোয়ালজুর ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর জন্মদিন (১২রবিউল আওয়াল) উপলক্ষ্যে শনিবার বিকাল ২ টায় স্থানীয় কালিবাড়ী বাজার অস্থায়ী কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহ্ফিলের আয়োজন করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে নুমান আহমদ ও শাহিন আহমদের যৌথ সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়ন শাখার সভাপতি হাফিজ কামরুল ইসলাম, প্রধান অতিথি বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল-ইসলাহ কেন্দ্রীয় পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা ছরওয়ারে জাহান।

উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চাইন্দারপাড়া সুনিয়া হাফিজিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদরাসার আরবি প্রভাষক মুফতি আবুল কাসেম, লতিফিয়া সমাজ কল্যাণ পরিষদ বোয়ালজুর ইউপি শাখার সাধারণ সম্পাদক ক্বারি রুহেল আহমদ চৌধুরী, চাইন্দারপাড়া উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুল কাইয়ুম দুলাল, বাংলাদেশ আঞ্জুমানে আল-ইসলাহ বালাগঞ্জ উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক, হাফিজ মাওঃ আব্দুল হাকিম সালেহী,ব্যাবসায়ী ও ছাত্রনেতা শামছুল ইসলাম, আল ইসলাহ বালাগঞ্জ উপজেলা শাখার অফিস সম্পাদক মাও রেহেন আলী, তালামিযে ইসলামিয়া বালাগঞ্জ উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক যুবায়ের আহমদ, সাবেক প্রচার সম্পাদক জুবায়ের আহমদ যুবেল,ব্যাবসায়ী ও আল ইসলাহ নেতা আব্দুল কাদির লেবু,মাওলানা ফেরদাউস আহমদ, ক্বারি আব্দুর রহিম, ক্বারি সানাওর আলী, ক্বারি আব্দুল ওয়াদুদ,চাইন্দারপাড়া জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা ফেরদাউস আহমদ, মাওলানা জিল্লুল হক ইমাম বাণিগাও জামে মসজিদ, মাওলানা তৈমুছ আলি খান ইমাম বাংঙ্গালীয়া জামে মসজিদ,মাওলানা মনিরুল ইসলাম ইমাম মোহাম্মদ শাল জামে মসজিদ,মাওলানা নজরুল ইসলাম মোহাম্মদ পুর পূর্ব পাড়া জামে মসজিদ, স্থানীয় আল ইসলাহ ও তালামিযের নেতৃবৃন্দ প্রমূখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর আর্দশকে আমাদের মাঝে অর্ন্তনিহিত করতে হবে, ১২ রবিউল আউয়াল পৃথিবীর বুকে আল্লাহর রহমত হিসেবে আবির্ভূত হন আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। তিনি সমগ্র বিশ্ববাসীর জন্য সর্বোত্তম আদর্শের শিক্ষাদাতা হিসেবে আবির্ভূত হয়ে তাঁর সুন্দরতম আদর্শের মাধ্যমে পৃথিবীতে শান্তি-সৌহার্দ্য, সাম্য-মানবতা প্রতিষ্ঠা করেন।

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) হলেন বিশ্ব শান্তির অগ্রদূত। তার সার্বজনীন শান্তির বার্তা দুনিয়ার দিকে দিকে ছড়িয়ে দিতে হবে। সমাজে সাম্য ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠায় তার আদর্শের কোনো বিকল্প নেই। প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বিশ্বমানবতার এক ক্রান্তিলগ্নে দুনিয়ার বুকে তাশরীফ এনেছিলেন। তখন মানুষে মানুষে ছিল হানাহানি। চারিদিকে ছিল অসত্য আর অন্যায়ের জয়জয়কার। দু:শাসনের যাতাকলে নিষ্পেষিত ছিল মানব সমাজ। এমনি সময়ে মানুষকে প্রকৃত মানবিক মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতে দুনিয়ার বুকে তাশরীফ এনেছিলেন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)। তিনি ছিলেন বিশ্বমানবতার জন্য আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ করুণা ও অনুগ্রহ। তার জীবনদর্শনে ব্যক্তি ও সমাজ জীবনের সর্বোত্তম ও পরিপূর্ণ আদর্শ নিহিত রয়েছে। সে আদর্শ অনুসরণে সমাজে শান্তি, সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য, ভ্রাতৃত্ব প্রতিষ্ঠায় আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। প্রিয়নবীর প্রতি যেমন সর্বোচ্চ ভালোবাসা লালন করতে হবে তেমনি তার সুমহান আদর্শ অনুসরণ, চর্চা ও প্রচার-প্রসারে আমাদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।বক্তারা আরও বলেন, বর্তমান সময়ে কিছু কুচক্রীমহল দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে। মুসলমান ও হিন্দুদের মধ্যে সংঘাত সৃষ্টির পায়তারা করছে। এ বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। ইসলাম কখনো অশান্তি সৃষ্টি ও সংঘাতকে সমর্থন করে না। ইসলামের নবী দুনিয়াতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির যে নমুনা প্রদর্শন করেছেন এর নজীর কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই প্রিয়নবীর আদর্শ অনুসরণে সংঘাত নয় বরং শান্তি প্রতিষ্ঠায় আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। কুমিল্লায় যে ন্যাক্কারজনক ঘটনা সংঘটিত হয়েছে তা কোনো গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ। এর সাথে জড়িতদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। ধর্ম-বর্ণ, দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে উস্কানীমূলক বক্তব্য পরিহার করতে হবে। ষড়যন্ত্রকারীদের ফাঁদে পা দিয়ে মুসলমানদেরকে অযথা যেন হয়রানি করা না হয় সেদিকে সরকারকে খেয়াল রাখতে হবে। দেশের শান্তি রক্ষায় সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

আলোচনা শেষে দোয়া পরিচালনা করেন, মুফতী আবুল কাশেম।